মেনু নির্বাচন করুন
খবর

বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য বাংলাদেশ আনসারের গৃহ নির্মাণ।

সুনামগঞ্জ, ০১ ফেব্রুয়ারী,২০২১খ্রি.

 

মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী’র সম্মানিত মহাপরিচালক  মহোদয়ের ঐকান্তিক অভিপ্রায়ে বাহিনীর নিজস্ব অর্থায়নে সুনামগঞ্জ জেলায় বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনসার পরিবারকে নতুন ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হলো।

 

বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আবুল হোসেন সুনামগঞ্জের সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের অচিন্তপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। তিনি একজন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত আনসার কমান্ডার ছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনা লগ্নে, ২৭ মার্চ ১৯৭১ সালে রাইফেল নিয়ে সুনামগঞ্জের পুরাতন সার্কিট হাউস এলাকায় পাক হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে অবতীর্ণ হন। মুক্তিযোদ্ধা দলে সে সময় প্রায় ২৫জন তরুণ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। পাক হানাদার বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ের একপর্যায়ে তিনি মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন। স্বাধীনতা যুদ্ধে সুনামগঞ্জ জেলায় এই বীর মুক্তিযোদ্ধা আনসার কমান্ডার প্রথম শহীদ হন (গেজেট নং-৪৪১)। যুদ্ধে শাহাদত বরণকালে তিনি তাঁর স্ত্রী রহিমা বেগম, দুই কন্যা এবং এক পুত্র রেখে যান যাঁরা সবাই ছিলেন ১ থেকে ৪ বছরের শিশু। কালক্রমে তাঁর অচিন্তপুর গ্রামের বসতবাড়িটি নদীভাঙ্গনের কবলে পতিত হয়ে সুরমা নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। তখন বিধবা রহিমা বেগম পু্ত্র কন্যাদের নিয়ে তাঁর পিতৃভিটায় বর্তমান সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহীমপুর গ্রামে আশ্রয় নেন । বর্তমানে তাঁর দুই কন্যা বিবাহিতা। তাঁর স্ত্রী একমাত্র পু্ত্রকে নিয়ে বর্তমান অবস্থানে দীর্ঘদিন ধরে দৈন্যদশার মধ্যে ২০ ফুট দৈর্ঘ্যের ৭ ফুট প্রস্থের একচালা ছাপড়া টিনের ঘরে তাঁর বসবাস করে আসছেন।  

 

 

মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে সম্প্রতি এ বাহিনীর সম্মানিত মহাপরিচালক মহোদয় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর হতদরিদ্র জীর্ণ বাড়িতে বসবাসকারী কিছু সংখ্যক আনসার ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের স্বল্প ব্যয়ে বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। সে পরিপ্রেক্ষিতে সিলেট রেঞ্জ থেকে বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনসার কমান্ডার সৈয়দ আবুল হোসেনের পরিবারের জর‌্য গৃহ নির্মানের প্রস্তাবনা প্রেরণ করা হয় এবং মহাপরিচালক মহোদয় প্রস্তাবনাটি অনুমোদন দান করেন। অনুমোদন লাভের পর জেলা কমান্ডান্ট সুনামগঞ্জের তত্বাবধানে এবং রেঞ্জের উপ-সহকারী প্রকৌশলীর নিবিঢ় পর্যবেক্ষণে মাত্র ২ সপ্তাহের মধ্যে ২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে জীর্ণ ঘরের স্থানে ২১ফুট দৈর্ঘ্য এবং ১৪ ফুট প্রস্থ বিশিষ্ট সংযুক্ত টয়লেটসহ একটি আধা পাকা দোচালা টিনের ঘরটির নির্মাণ সম্পন্ন হয়।

 

 

সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহীমপুর গ্রামে ঘরটির নির্মাণ সম্পন্ন হওয়ার পর জেলা কমান্ডান্ট সুনামগঞ্জ ভাষা মাসের প্রথম তারিখে তথা ১ ফেব্রুয়ারী তারিখে শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের নিকট ঘরটি আনুষ্ঠানিকভাবে  হস্তান্তরের আয়োজন করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী সিলেট রেঞ্জের রেঞ্জ কমান্ডার জনাব মো. রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব ইয়াসমিন নাহার এবং সুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব আবদুস সাত্তার। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জের জেলা কমান্ডান্ট জনাব এনামুল খাঁন। অনুষ্ঠানে অতিথিগণের বক্তব্য শেষে শহীদ মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রী রহিমা বেগমকে ‘বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনসার কমান্ডার সৈয়দ আবুল হোসেন স্মৃতিঘর’ উপহার দেওয়া হয়। সেই সাথে তাঁকে রেঞ্জ কমান্ডারের পক্ষ থেকে কিছু নগদ টাকা এবং জেলা কমান্ডান্টের পক্ষ থেকে কিছু পোশাক সামগ্রী ‍উপহার দেওয়া হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সাংবাদিকগণ, এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ এবং আনসার ভিডিপির স্থানীয় সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর নিকট থেকে  বসতবাড়িসহ উপহার সামগ্রী পেয়ে শহীদ আবুল হোসেনের স্ত্রী সন্তুষ্টি এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।  


আরও খবর সংবাদ পত্রে: পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন

ছবি


ফাইল


প্রকাশনের তারিখ

২০২১-০২-০১

আর্কাইভ তারিখ

২০২১-১২-৩১


Share with :

Facebook Twitter